খালেদা জিয়াকে এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি

খালেদা জিয়াকে এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি

মঙ্গলবার রাতে বাসা থেকে বের হয়ে হাসপাতালের পথে গাড়িতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জিয়া।

চিকিৎসার জন্য রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে ভতি হয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। মঙ্গলবার ( ২৭ এপ্রিল) মধ্যরাতে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ম্যাডামের শারীরিক অবস্থা খুবই ভালো। উনার আরো পরীক্ষা নিরীক্ষা দরকার সেজন্য আজকে রাতে হাসপাতালেই থাকবেন। করোনার কোনো জটিলতা তৈরি হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, না, কোনো জটিলতা নেই।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, রাত ১২টা পর্যন্ত সিটি স্ক্যান, আলট্রাসনোগ্রাম, ইকো-ইসিজিসহ কয়েকটি পরীক্ষা করা হয় তার। নানা পরীক্ষার সুবিধার্থে রাতে তাকে ভর্তি করা হয়। তিনি হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মো. শাহাবুদ্দিন তালুকদারের অধীনে সাত তলায় ৭২০৩ রুমে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এর আগে এদিন রাত সাড়ে নয়টার দিকে গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’ থেকে হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা হন বিএনপি চেয়ারপারসন। পরে রাত ১০টা ১০ মিনিটের দিকে হাসপাতালে এসে পৌঁছান। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন গৃহকর্মী ফাতেমা।

এছাড়া হাসপাতালে আসেন তার মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসক ডা. জাহিদ হোসেন, ডা. আল মামুন, ডা. এফ এম সিদ্দিকী এবং বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এর আগে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত ডাক্তার ডা. জাহিদ হোসেন বলেন, ম্যাডামের কিছু শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে।

গত শনিবার খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় করোনা টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসার কথা জানিয়ে তার চিকিৎসক ডা. এফ এম সিদ্দিকী গণমাধ্যমকে এদিন মাঝরাতে বলেন, আমরা এডমিশন দিয়ে রেখেছি এই কারণে যে আমাদের আরো কিছু পরীক্ষা বাকি রয়ে গেছে। সেৃ টেস্টগুলো আমরা কালকে করবো এবং সে টেস্ট রিপোর্ট রিভিউ করে আমরা আবার উনাকে বাসায় ফিরিয়ে নিয়ে যাবো।

তিনি বলেন, আসলে আমরা টেস্ট রিপোর্টগুলো দেখে তারপর ব্যবস্থা নিবো। উনার ফুসফুস খুবে সুন্দর পরিষ্কার আছে।

গত ১৫ এপ্রিল রাতে এভারকেয়ার হাসপাতালে খালেদা জিয়ার সিটি স্ক্যান করা হয়। তারপর তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা বলেন, সিটি স্ক্যানে খালেদা জিয়ার ফুসফুসে খুবই সামান্য সংক্রমণ হয়েছে। যা সত্যিকার অর্থে মাইল্ড পর্যায়েও পড়ে না। তাই খালেদা জিয়ার আগের ওষুধের সঙ্গে নতুন ওষুধ অ্যান্টিবায়োটিক যুক্ত করা হয়।

এর আগে গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। তার বাসভবন ফিরোজার আরও আটজন ব্যক্তিগত স্টাফও আক্রান্ত হন। বর্তমানে তিনিসহ চারজন করোনা আক্রান্ত আছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 doinikprovateralo.Com
Desing & Developed BY Md Mahfuzar Rahman