দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ১৫ই মার্চ থেকে পিয়াজ আমদানি শুরু

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ১৫ই মার্চ থেকে পিয়াজ আমদানি শুরু

আবারো আগামী ১৫ই মার্চ থেকে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পিয়াজ আমদানি শুরু হচ্ছে। র্দীঘ ৫ মাস পর ভারত সরকার পিয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার আদেশ প্রত্যাহার করেছে। আর এর পর পরেই হিলি স্থলবন্দরের ১০ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ২৫ হাজার টন পিয়াজ আমদানির অনুমতি চেয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের অনলাইনে আবেদন করেছে। অন্যদিকে আগামী ১৫ই মার্চ থেকে পিয়াজ রপ্তানি করবে ভারত এমন চিঠি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার রপ্তানিকারকরা।

অভ্যন্তরীণ বাজারে পিয়াজের সংকট ও মূল্যবৃদ্ধির কারণে গত ২৯শে সেপ্টেম্বর থেকে পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারত সরকার। দীর্ঘ পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর গত ২৬শে ফেব্রুয়ারি ভারত পিয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়। এমন অবস্থায় দেশের বাজারে পিয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক করতে ও মূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে একদিন পরেই বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পিয়াজ আমদানির অনুমিতি চেয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রে আবেদন করেছেন হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকরা। এবারে সে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে পিয়াজের ফলন ভালো হওয়ায় রপ্তানির উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা আদেশ প্রত্যাহার করে নেয় এবং আগামী ১৫ই মার্চ থেকে আবারো পিয়াজ রপ্তানি করবে ভারত সরকার।

এর আগে গত ২৬শে ফেব্রুয়ারি ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সভাপতিত্বে এক আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে পিয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। দেশটির খাদ্য ও ভোক্তা অধিকার বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী রাম বিলাস পাসোয়ান এ তথ্য নিশ্চিত করে টুইটারে পোস্ট দিয়েছিলেন।

ওই ঘোষণার ৫ দিনের মাথায় গত সোমবার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের নির্দেশনা জারি করা হল। ভারতের বৈদেশিক বাণিজ্য বিভাগের মহাপরিচালক অমিত যাদবের সই করা ওই নির্দেশনায় গত বছরের ২৯শে সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হওয়া পিয়াজ রপ্তানিতে সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কথা বলা হয়েছে। এ নির্দেশনা ১৫ই মার্চ থেকে কার্যকর হবে বলে জানানো হয়েছে।

এদিকে হিলি স্থলবন্দরের পিয়াজ আমদানিকারক নাজমুল ও আহম্মেদ আলী সরকার বলেন, ‘নির্দেশনার কপি ভারতীয় রপ্তানিকারকদের মাধ্যমে রাতেই আমরা হাতে পেয়েছি। তাতে পিয়াজের ন্যূনতম কোনো রপ্তানিমূল্য নির্ধারণ করা হয়নি। এতে আমরা ভারত থেকে যে দামে পিয়াজ কিনবো সেই দামেই এলসির মাধ্যমে দেশে আমদানি করতে পারবো। আমরা উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রে আইপির জন্য আবেদন করেছি। অনুমোদন পেলে ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করে পিয়াজের এলসি খোলা হবে। এর ফলে ১৫ই মার্চ থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে দেশে পিয়াজ আমদানি হতে পারে। এ ছাড়া আসন্ন রমজানে দেশের বাজারে পিয়াজের বাড়তি চাহিদাকে ঘিরে এলসিও খোলা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 doinikprovateralo.Com
Desing & Developed BY Md Mahfuzar Rahman