বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার কিশোরী, দুই ধর্ষক আটক

বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার কিশোরী, দুই ধর্ষক আটক

বন্ধুর সঙ্গে কুয়াকাটায় বেড়াতে গিয়ে বরগুনা জেলার আমতলী পৌরসভার এক অষ্টম শ্রেনির শিক্ষার্থী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় সেই কিশোরীর মা বাদী হয়ে অপহরণ ও গণধর্ষণের অভিযোগ এনে আমতলী থানায় মঙ্গলবার দুপুরে একটি মামলা দায়ের করেছে। এ গণধর্ষণের সাথে জড়িত কিশোরীর কথিত বন্ধু জিসান ওরফে সোহেল (১৮) ও ভাড়াটিয়া মটরসাইকেল চালক সাগর (২১) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সোমবার (২৪ আগস্ট) রাতে কুয়াকাটার আবাসিক হোটেল রাজু ও সাগর নীড় হোটেলে এ গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, পটুয়াখালী জেলার মহিপুর থানা সদর ইউনিয়নের সেরাজপুর গ্রামের বাদশা গাজীর পুত্র জিসান ওরফে সোহেল এর সাথে মোবাইলে কথোপোকথনের মাধ্যমে বন্ধুত্ব হয় ওই কিশোরীর। সেই সুবাদে জিসানের প্রায় সময়ই মোবাইলে কথা হতো ওই কিশোরীর। এক পর্যায়ে জিসান কিশোরীর সাথে দেখা করতে আমতলী পৌর এলাকার সকাল সন্ধা হোটেলের সামনে গিয়ে ফোন করলে তাদের দেখা হয়। এসময় জিসান তার সাথে ঘুরতে যাবার আবদারে কিশোরীকে অটো রিক্সায় টেনে তুলে খুড়িয়ার খেয়াঘাটের দিকে নিয়ে যায়। সেখানে যাওয়ার পর আগে থেকেই প্রস্তুত ভাড়া মটরসাইকেল কিছু বুঝে ওঠার আগেই টেনে তুলে। এসময় আপত্তি তুললেও মটরসাইকেল চালক দ্রুতগতিতে চালিয়ে কিশোরীকে কুয়াকাটায় নিয়ে যায়।

রাত আটটার দিকে কুয়াকাটা মহাসড়কের পাশে অবস্থিত আবাসিক হোটেল রাজু’র ২০৩ নম্বর কক্ষে উঠায়। সেখানে জিসান ওরফে সোহেল (১৮) ও সাগর (২১) সহ ৫ জনে মিলে প্রথম দফায় ধর্ষণ করে তাকে। হোটেলে ওঠার এক ঘন্টা পর হোটেল রাজু’র কক্ষ থেকে তাকে নিয়ে বেড়িয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে জেলা পরিষদ ডাক বাংলো সংলগ্ন আবাসিক হোটেল সাগর নীড়’র নীচ তলায় এ-ফোর ও এ-ফাইভ নামে দু’টি কক্ষ ভাড়া নিয়ে রাতভর পাঁচ যুবক মিলে ধর্ষণ করে কিশোরীকে। সকালে ধর্ষক সোহেল তাকে পরিবহনে আমতলী পাঠিয়ে দেয় । মীম সেখান থেকে বাড়িতে গিয়ে মায়ের কাছে এ ঘটনা জানায়।
এ ঘটনায় মীমের মা বাদী হয়ে অপহরণ ও গণধর্ষণের অভিযোগ এনে আমতলী থানায় মঙ্গলবার দুপুরে একটি মামলা দায়ের করে।

আমতলী থানার ওসি তদন্ত মোঃ হেলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ওইদিন বিকেলে তাকে নিয়ে আসামিদের ধরতে অভিযানে নামে। অভিযান কালে কিশোরীর সনাক্ত মতে আমতলী পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের সানু হাওলাদারের পুত্র ভাড়াটিয়া মটরসাইকেল চালক সাগর (২১) কে গ্রেপ্তার করে। এরপর পটুয়াখালীর মহিপুর থানা সদর ইউনিয়নের সেরাজপুর গ্রামের বাদশা গাজীর পুত্র জিসান ওরফে সোহেল (১৮) গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার দুই ধর্ষক ও কিশোরীকে নিয়ে সন্ধায় কুয়াকাটায় আবাসিক হোটেল রাজু ও সাগর নীড় হোটেলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। সেখানে হোটেলের গেষ্ট রেজিস্টার জব্দ করে। এবং হোটেলের ম্যানেজার ও স্টাফদের সাথে কথা বলে অভিযোগের সত্যতা পান।

পুলিশ আরও জানান, আবাসিক হোটেল সাগর নীড়’র গেষ্ট রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ রুম ও নামের সাথে কোন মিল নেই। সেখানে কিশোরীর নাম রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করা হয়নি। দুই রুমে কিশোরীসহ ৬ জন অবস্থান করলেও সেখানে রেজিষ্টারে ১জনের নাম রয়েছে, কক্ষ নম্বর দেখানো হয়েছে বি-ফোর ও বি-ফাইভ। ওই হোটেলের গেষ্ট রেজিষ্টারে কোন ধরনের নিয়মকানুন মানা হয়নি।

আমতলী থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ হেলাল উদ্দিন জানান, এক কিশোরীর মা বাদী হয়ে অপহরণ ও গনধর্ষণের অভিযোগে আমতলী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। প্রাথমিক তদন্তে ধর্ষণের প্রমাণ পাওয়া গেছে। কিশোরীর শনাক্ত মতে দুই ধর্ষককে আটক করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে বাকী আসামিদের চিহ্নিত ও গ্রেপ্তারে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিশোরীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 doinikprovateralo.Com
Desing & Developed BY Md Mahfuzar Rahman