ভারত জুড়ে ট্রেন, বাস ও বিমান চলাচলও বন্ধ ৩ মে পর্যন্ত

ভারত জুড়ে ট্রেন, বাস ও বিমান চলাচলও বন্ধ ৩ মে পর্যন্ত

ভারত জুড়ে ট্রেন, বাস ও বিমান চলাচলও বন্ধ ৩ মে পর্যন্ত জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে মঙ্গলবার দেশবাসীকে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় আরও কঠোর ভাবে লকডাউন ও সামাজিক দূরক্ব মেনে চলার উপর গুরুত্ব দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তবে দেশজুড়ে লকডাউনের দ্বিতীয় পর্ব আগামী ১৯ দিন ধরে চলবে জানানোর পরই রেল ও অসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রকের পক্ষ থেকে আগামী ৩ মে পর্যন্ত বন্ধ রাখার কথা ঘোষনা করা হয়েছে। রেল মন্ত্রক জানিয়েছে, আগামী ১৯ দিন ভারতে কোনও যাত্রীবাহী ট্রেন চলবে না। কোন শহরের কোনও মেট্রো ট্রেনও চলবে না। তবে অত্যাবশ্যকীয় পন্য সরবরাহে ট্রেন চলাচল করবে আগের মতই। অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রকের পক্ষ থেকেও জানানো হয়েছে, আন্তর্জাতিক বা অভ্যন্তরীণ কোনও উড়ানই চলবে না ৩ মে রাত ১২টা পর্যন্ত। বিমান সংস্থাগুলি অবশ্য সীমিতভাবে অভ্যন্তরীণ ক্ষেত্রে কিছু শহরের মধ্যে বিমান চালানোর প্রস্তুতি নিয়েছিল। তবে আগামী দুই সপ্তাহ করোনা মোকাবিলার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রক কোনও ঝুঁকি নিতে রাজি হয় নি।তবে জরুরি পরিষেবার কাজে কিছু বিমান আগের মতই চলবে।  এদিকে লকডাউনের দ্বিতীয় পর্বেও কোনও গণপরিবহন চলবে না বলে জানানো হয়েছে।

বন্ধ থাকবে আন্তঃরাজ্য পরিবহনও। জরুরি ক্ষেত্রে অবশ্য কিছু পরিবহনকে ছাড় দেওয়া হয়েছে। এদিকে লকডাউনের দ্বিতীয় পর্বের গাইডলাইন বুধবার জানানো হবে বলে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি দেশবাসীর উদ্দেশ্যে ৭ টি নিয়ম মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আগামী ৩ মে পর্যন্ত জারি থাকা লকডাউনে, আমাদের প্রত্যেককে এই নিয়মগুলি মেনে চলতে হবে। দেশের যুবসমাজকে এ বিষয়ে এগিয়ে আসার ও যোগদান করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। তাঁর মতে, আগামী কয়েকদিন এই ৭টি নিয়ম পালনের মাধ্যমে আমরা দেশজুড়ে করোনার বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিরোধ গড়ে তুলব। এই সপ্তপদীই জয়ী হওয়ার একমাত্র উপায়। তিনি লকডাউনের দ্বিতীয় পর্বেও দেশবাসীর উদ্দেশ্যে লকডাউন সফল করতে সবাইকে যোগদানের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সম্পূর্ণ নিষ্ঠার সঙ্গে লকডাউনের নিয়ম পালন করুন। আমরা সবাই রাষ্ট্রকে জীবন্ত ও জাগ্রত রাখব। প্রধানমন্ত্রী যে সাতটি নিয়মের কথা বলেছেন, সেগুলি হল : ১. বাড়ির প্রবীণদের প্রতি খেয়াল রাখুন। বিশেষ করে যাঁদের আগেই কোনও অসুখ রয়েছে। তাঁরা সঠিক স্বাস্থ্যবিধি মানছেন কিনা সেটা নজরে রাখুন।  ২. লকডাউন ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। নিজে শুধু নয়, আশেপাশের সবাই যাতে নিয়ম মেনে চলেন, সেদিকেও নজর দিন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। বেরতে হলে মাস্ক ব্যবহার করুন। প্রয়োজনে বাড়িতে বানানো মাস্কই ব্যবহার করুন। ৩. নিজের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে জোর দিন। তা বাড়াতে ভারতের আয়ুষ মন্ত্রকের দেওয়া রোগ প্রতিরোধ বৃদ্ধি করার উপায়গুলি মেনে চলুন। যেমন গরম জল পান, যোগ ইত্যাদি। ৪. করোনা সংক্রমণ রোধ করতে ‘আরোগ্য সেতু’ মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন। সেই অ্যাপের মাধ্যমে করোনা সতর্কতা বৃদ্ধিতে সামিল হন। ৫. এই সময়টা যতটা পারেন গরিব পরিবারের পাশে দাঁড়ান। তাঁদের সাধ্য মতো সাহায্য করুন। ৬. নিজের ব্যবসা বা শিল্পোদ্যোগের ক্ষেত্রে কর্মচারীদের প্রতি সমব্যাথী হোন। দয়া করে কর্মীদের চাকরি থেকে বরখাস্ত করবেন না। তাঁদের সহায় হওয়ার চেষ্টা করুন। ৭. করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে লড়ছেন যাঁরা সেই ডাক্তার, নার্স, সাফাইকর্মী, পুলিসকর্মী সকলকে সম্মান করুন। তাঁদের যেন কোনও অসুবিধা না হয়, সেদিকে নজর দিন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 doinikprovateralo.Com
Desing & Developed BY Md Mahfuzar Rahman