মার্কিন বিমান থেকে নামিয়ে দেয়া হয় মুসলিম মহিলাকে

মার্কিন বিমান থেকে নামিয়ে দেয়া হয় মুসলিম মহিলাকে

পাশের লোকটিকে আসন পরিবর্তন করতে বলায় শিকাগোয় সাউথইস্ট এয়ারলাইন্সের একটি বিমান থেকে নামিয়ে দেয়া হয় একজন মুসলিম মহিলাকে। হাকিমা আব্দুল্লে তার পাশের লোকটিকে জিজ্ঞাসা করেন, তিনি তার আসনটি পরিবর্তন করতে পারেন কি না এবং তাতে তিনি রাজিও হয়েছিলেন। এতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ না করায় ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট হাকিম আব্দুল্লেকে বিমান থেকে নামিয়ে আনেন।
এ ঘটনার পর, সোমালি বংশোদ্ভ‚ত এবং হিজাব পরা আব্দুল্লের বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল তার পেছনে ‘পক্ষপাতমূলক উদ্দেশ্য’ ছিল বলে বর্ণনা করে কাউন্সিল অন আমেরিকান ইসলামিক রিলেশনস (সিএআইআর) তদন্তের আহবান জানায়। সিএআইআর-এর জয়নব চৌধুরী বলেন, ‘এ অভিজ্ঞতার ফলস্বরূপ তিনি মারাত্মক সঙ্কট ও উদ্বেগে পড়েন। যাত্রীতে পরিপূর্ণ বিমানে তাকে প্রকাশ্যে অপমান করা হয়েছিল’।

মিজ চৌধুরী জানান, হাকিমা আব্দুল্লে সিয়াটলে একটি পরিবারের একজন গর্ভবতী সদস্যকে সহায়তা করার জন্য একটি কানেকটিং ফ্লাইটে একা ভ্রমণ করছিলেন। হাকিমা তার প্রতিবেশীকে আসন পরিবর্তন করতে বললে তিনি তাতে রাজি হন, তখন একজন ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট হস্তক্ষেপ করে বলেন যে, এয়ারলাইন্সের আসন চিহ্নিতকরণের নীতি না থাকা সত্তে¡ও এটি অনুমোদিত নয়।

এতে হাকিমা জিজ্ঞাসা করলেন, কেন তিনি আসন পরিবর্তন করতে পারছেন না? ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্ট তাকে এ প্রশ্নের কোনও উত্তর না দিয়েই বিমান থেকে নেমে যেতে বলে। হাকিমা একজন সুপারভাইজারের সাথে কথা বলতে বলেন এবং কয়েক ঘণ্টা পরে সিয়াটেলের একটি ফ্লাইটে তার আসন বুক করা হয়।
পুলিশ ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্টকে তার সিদ্ধান্তের পিছনে কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করলে, তিনি উত্তর দিয়েছিলেন যে, তিনি যাত্রীর সাথে ‘স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না’।

জয়রব চৌধুুরী সাউথইস্ট এয়ারলাইন্সের তদন্ত, আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চাওয়া এবং আবদুল্লের বিমান ভাড়া পরিশোধের আহবান জানিয়েছেন। এ ঘটনা নিয়ে আলোচনার জন্য একটি সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছিল, যেখানে হাকিমা আবদুল্লের স্বামী আবুবকর ফাদাউ তার স্ত্রীর সমর্থনে বক্তব্য রেখেছিলেন। তিনি বলেন, ‘তার স্ত্রী সবার সামনে কাঁদছিলেন’।

ফাদাউ ফোনে ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্টের সাথে কথা বলেন এবং সীমিত ইংরেজিতে বলার কারণে কেন তার স্ত্রীকে বিমান থেকে নামিয়ে দেয়া হচ্ছে তা তাকে বোঝাতে বলেন। তিনি বলছিলেন, ‘তারা আমাকে উপেক্ষা করেছিল’।
এ দম্পতির আইনজীবী উইলিয়াম বার্গেস ইঙ্গিত দেন যে, ধর্মের ভিত্তিতে যাত্রীদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করা ফেডারেল আইনের লঙ্ঘন এবং আরও যোগ করেন যে, তিনি একাই এ বছর মুসলমানদের কাছ থেকে প্রায় অর্ধ ডজন অনুরূপ অভিযোগ পেয়েছেন।

পাইলট নিরাপত্তা ইস্যু তোলায় গত মাসে এক মুসলিম দম্পতি এবং তাদের তিন সন্তানকে শিকাগো বিমানবন্দরে ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের বিমান থেকে নামতে বলা হয়েছিল। সূত্র : দ্য ট্রিবিউন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 doinikprovateralo.Com
Desing & Developed BY Md Mahfuzar Rahman