মৃতের সংখ্যায় চীনকে ছাড়াল ইতালি : ভারতে ‘জনতা কারফিউ’ জারি

মৃতের সংখ্যায় চীনকে ছাড়াল ইতালি : ভারতে ‘জনতা কারফিউ’ জারি

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেছে ইতালি। গতকাল চীনে ৩ হাজার ২৪৫ জন মৃতের বিপরীতে ইতালিতে ৩ হাজার ৪০৫ জন মারা যাওয়ার তথ্য রেকর্ড করা হয়েছে। সতর্কতার মাত্রা না বাড়ালে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২২ লাখ মানুষের মৃত্যু হতে পারে আমেরিকায় এবং এই সংখ্যাটা ব্রিটেনের ক্ষেত্রে ৫ লাখ। এমনটাই দাবি করেছেন ব্রিটেনের গবেষকরা। ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকার ইতিমধ্যেই এই ভাইরাসের মোকাবিলায় আমেরিকায় প্রবেশে ইউরোপীয়দের উপর এক মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এবার ওই পর্যবেক্ষণের উপর ভিত্তি করেই করোনা মোকাবিলায় দেশ জুড়ে কড়া নির্দেশিকা জারি করেছে বরিস জনসন সরকারও।
সোমবার থেকেই করোনা মোকাবিলায় আরও কড়া পদক্ষেপের কথা জানিয়েছে বরিস জনসন সরকার। মূূলত, ইম্পিরিয়াল কলেজ লন্ডনের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি পর্যবেক্ষণের পরই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রিটেন। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যাথেমেটিক্যাল বায়োলজির এক অধ্যাপক নিল ফার্গুসনের নেতৃত্বে যে পর্যবেক্ষণে দাবি করা হয়েছে, করোনা মোকাবিলায় আরও কড়া না হলে ব্রিটেনে মৃত্যু ছুঁতে পারে ৫ লাখ।
সাম্প্রতিক কালে চীন ছাড়াও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া বা মৃত্যুর হার হু হু করে বেড়েছে ইটালিতে। ইতিমধ্যেই আড়াই হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে সে দেশে। আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ৩১ হাজারেরও উপরে। সেই ইটালি থেকেই করোনা সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে ওই পর্যবেক্ষণ করেছে ইম্পিরিয়াল কলেজের গবেষকরা। ১৯১৮ সালে বিশ্ব জুড়ে ফ্লু-এর কারণে যে অতিমারি হয়েছিল, তার সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে করোনাকে। গোটা বিশ্বে ৫ কোটিরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। কেবলমাত্র ব্রিটেনেই তাতে মৃত্যু হয়েছিল ২ লাখ ২৮ হাজার মানুষের। গবেষকদের দাবি, এখনই সতর্ক না হলে মৃত্যুর হারে সে সংখ্যাকেও ছাপিয়ে যাবে ব্রিটেন। ব্রিটেন ছাড়াও করোনাভাইরাসের কোপে কেবলমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই ২২ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হতে পারে। হোম আইসোলেশনের মতো পদক্ষেপ করলেও এই সংখ্যায় বেশি হেরফের হবে না বলেও মত বিশেষজ্ঞদের।
করোনা মোকাবিলায় দ্রæত পদক্ষেপ না করার অভিযোগ উঠেছে ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে। জনস্বাস্থ্য বিশষজ্ঞদের তোপের মুখে পড়তে হয়েছে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে। তবে এই পর্যবেক্ষণ প্রকাশিত হওয়ার পর করোনা মোকাবিলায় আরও সক্রিয় হয়েছে প্রশাসন। প্রশাসনিক কর্তাদের দাবি, বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে করোনা মোকাবিলায় পরিকল্পনা আরও দ্রæত রূপায়ণের চেষ্টা শুরু হয়েছে।
উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসে সারা বিশ্বে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্য প্রায় ২ লাখ ২৮ হাজার ও মৃতের সংখ্যা প্রায় ৯ হাজার ৩০০ জন। এছাড়া ৮৭ হাজারেরও বেশি মানুষ এই ভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে ফিরেছেন।
ভারতে ‘জনতা কারফিউ’ জারি
ভারতে করোনাভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে ভারত জুরে জনতা কারফিউ জারি করা হয়েছে। রোববার সকাল ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এ কারফিউ বলবৎ থাকার ঘোষণা দেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। করোনাভাইরাস নিয়ে গতরাতে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন তিনি। এ সময় প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, রোববার সকাল-সন্ধ্যা জনতা কারফিউ পালন করুন। এদিন কেউ সকাল ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বাড়ি থেকে বের হবেন না। এরপর তিনি সবার প্রতি কারফিউয়ের খবর দেশব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার আহবান জানান।
নরেন্দ্র মোদি সবাইকে সতর্ক করে বলেন, জনতা কারফিউর দিনে কোনো ব্যক্তি তার বাড়ি থেকে বরে হবেন না অথবা তারা সামাজিক কোনো কর্মকাÐে অংশগ্রহণ করবেন না। শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় কাজে বের হতে পারবেন।
এর আগে তিনি করোনা মোকাবেলায় সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন। এতে ৬০ বছরের বেশি বয়স্কদের ঘর থেকে না বেরুনোর আহবান জানান তিনি। ভারতে ১৭৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটিতে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ৪ জনে দাঁড়িয়েছে। সূত্র : দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট ও এনডিটিভি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 doinikprovateralo.Com
Desing & Developed BY Md Mahfuzar Rahman